আলাপচারী কি?

আলাপচারী হচ্ছে প্রশ্ন-উত্তর ভিত্তিক একটি অনলাইন ফোরাম। সাইটটিতে মানুষ নানান বিষয়ে প্রশ্ন করে থাকেন এবং যারা সেসব বিষয়ে উত্তর জানেন সে নিয়ে উত্তর দিয়ে থাকেন।

আলাপচারী খুবই অথেনটিক একটি প্ল্যাটফর্ম।

এই সাইটের সবচে মজার ব্যাপার মজার হলো এখানে সাইকোলজিক্যাল মোটিভেশন পাওয়া যায়। কন্টেন্টগুলো খুবই গোছালো, ডেফিনিটিভ এবং ওয়েল রিসোর্সড। বিজ্ঞান, প্রযুক্তি, সাহিত্য, সংস্কৃতি, দর্শন, অর্থনীতি, চিকিৎসা, প্রকৌশল, সাম্প্রতিক খবরারখবর সহ সব ধরণের বিষয় নিয়ে আলাপ আলোচনা হয় এই সাইটটিতে।

সাধারণত রিসার্চ, ইনফরমেশন, ইন্টারেস্ট ও সামাজিক যোগাযোগের জন্য বিশ্বের বিশাল সংখার আলাপচারী ব্যবহার করে থাকেন। এইখানে যেসব প্রশ্ন ও উত্তর খুঁজে পাওয়া যাবে সবকিছুই ইউজাররা নিজেরা তৈরী করেছেন – বলা যেতে ভলেন্টিয়ারি কম্যুনিটি ফোরাম।

বিশ্বের নানা রকম আর চিন্তার মানুষের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় বেশ ভালোভাবে অত্যন্ত জনপ্রিয়তার সাথে আলাপচারী সাইটটি দিন দিন সমৃদ্ধ থেকে সমৃদ্ধতর হয়ে উঠছে।

আপনার মাথায় যদি নানান রকম প্রশ্ন সকাল-দুপুর ঘুরঘুর করে, আপনার যদি জানতে ইচ্ছে হয় যে আপনি যেটা ভাবছেন সেটা আদো সঠিক কিনা কিংবা এই বিষয়ে অন্যেরা কি ভাবছে, উক্ত বিষয়ে অন্যদের মতামত কি হতে পারে –তাহলে আপনার জন্যই আলাপচারী । যা জানেন না কিন্তু জানতে চান তা নিয়ে প্রশ্ন করুন, আপনার জানা বিষয়গুলো নিয়ে উত্তর লিখুন, ভালো লেখকদের অনুসরণ করুন এবং মেতে উঠুন প্রশ্ন আর উত্তরের বুদ্ধিভিত্তিক খেলায়।

যেভাবে আলাপচারী ব্যবহার শুরু করবেন?

আলাপচারী-তে ব্যক্তিগত একাউন্ট খোলার সুযোগ রয়েছে। একাউন্ট খোলার প্রক্রিয়াটি খুবই ইউজার ফ্রেন্ডলি। মেইল আইডিসহ দুয়েকটা প্রাসঙ্গিক তথ্য দিয়ে যেকেউ খুব সহজেই আইডি খুলে নিতে পারবেন। এছাড়াও ফেসবুক বা টুইটার একাউন্ট দিয়েও আলাপচারী-তে একাউন্ট খোলা সম্ভব।

একাউন্ট খোলার পর দুয়েকটা ইজি স্টেপ আপনাকে কমপ্লিট করতে বলা হবে, যেমন- নিজের প্রোফাইল ছবি দেয়া, বন্ধু যোগ করা ইত্যাদি।

প্রথম দিকে আপনার সাধারণত যেসব বিষয় পছন্দ সেগুলো অনুসরণ করা উচিত। দুচারদিন ব্যবহার করলে আপনি সহজেই বুঝতে পারবেন কীভাবে প্রশ্ন করতে হয়, কাকে ফলো করা উচিত-অনুচিত।

এছাড়াও কোন একটা প্রশ্নের পাশাপাশি সিমিলার টপিকস বা পিপল শো করে, সেগুলোও আপনি ধীরে ধীরে চুজ করতে পারেন। এতে আপনার ফিডটি আরো রিচ হবে।

কীভাবে প্রশ্ন করবেন?

আলাপচারী-তে খুব সহজেই প্রশ্ন করা যায়। একদম উপরের দিকে (+)প্লাস চিহ্ন দেওয়া একটা মেন্যু আছে। সেখানে যে প্রশ্নটি করতে চান সেটি টাইপ করুন। মাথায় রাখতে হবে, আলাপচারী সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক-টুইটারের মত নয়।

প্রশ্নের গুণগত মান রক্ষা করা খুবই জরুরি। প্রশ্ন করার সময় স্পেসিফিক প্রশ্ন করতে হবে যাতে উত্তরদাতা আপনার প্রশ্নটি সহজেই ধরতে পারেন। যিনি উত্তর লিখবেন তার উত্তর লেখার জন্য যেন উপযুক্ত ইনফরমেশন আপনার প্রশ্নে উল্লেখ থাকে- সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। আপনার প্রশ্ন যত ভালো হব, তত রিচ উত্তর পাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

উত্তর দেয়া প্রসঙ্গে

আলাপচারী-র মানসম্মত উত্তরই আলাপচারী-কে আলাদা জায়গায় দাঁড় করিয়েছে। আলাপচারী তাই ইউজারদের প্রশ্ন-উত্তর এই দুটি বিষয়কে অত্যন্ত গুরুত্বের সাথে বিবেচনা করে। উত্তর লেখার সময় অবশ্যই সৎ ও সঠিক উত্তরটি লেখা উচিত। রিসোর্স-রেফারেন্স দিয়ে উত্তর লেখলে সেটির গ্রহণযোগ্যতা বেশী হবে। যারা একদমই নতুন তাদেরকে নিজের সর্বোচ্চটা দিয়ে উত্তর লেখার চেষ্টা করা উচিত। বিগিনারদের জন্য যে বিষয়ে লিখছেন যে বিষয়ে ভালো তথ্য সংগ্রহ করে উত্তর লেখার অভ্যেস করা উচিত। এতে কোন একটি বিষয়ে আপনি যা জানেন পড়াশুনা করার ফলে আপনার জানার জগত বিস্তারিত হবে এবং আপনার ভালো উত্তর লেখার জন্য রসদও নিজের সংগ্রহে থাকবে।

এমনও হতে পারে, আপনার একটি উত্তরই আপভোট, ফলোয়ার এনে দিচ্ছে। ভালো প্রশ্ন করার জন্য যেসব বিষয়ে খেয়াল রাখতে হবে ।

ইনবক্স, আপভোট-ডাউনভোট, ব্লগিং, সেশন সহ অন্যান্য ফিচার

ফেসবুকের মত আলাপচারী-তেও ইনবক্স করার সুযোগ রয়েছে। আপনি চাইলে অন্যকে প্রাইভেট মেসেজ পাঠাতে পারেন। এটি মুলত যাদের সাথে আপনি আলাপচারী-তে কানেক্টেড রয়েছেন তাদের সাথে যোগাযোগ করার জন্য। এটি বেশ মজার একটা টুল কারণ একই মননের ও চিন্তার মানুষদের সাথে নিয়মিত যোগাযোগ এবং ইন্টেলেকচুয়াল আলাপ আলোচনা করার এমন সুযোগ আপনি ফেসবুকসহ অন্যান্য সাইটে পাবেন না। তাছাড়াও ফালতু বিষয়ে মজা করার অভ্যস্ততা বা সংস্কৃতি আলাপচারী-তে নেই। এই সাইটটি শুরু থেকেই অসাধারণ বুদ্ধিভিত্তিক চর্চার প্ল্যাটফর্ম হিসেবে নিজেকে অন্য মাত্রায় দাঁড় করিয়েছে।

আলাপচারী ব্লগ ফিচারটি বেশ জনপ্রিয়। ইউজাররা চাইলে আলাপচারী-তে ব্লগ লিখতে পারেন। আপনি আপনার ইন্টারেস্টেড বিষয় আসয় নিয়ে বিস্তারিত জানতে পারেন। আলাপচারী-কে বলা যাই পড়াশুনার কেন্দ্রস্থল , এই পড়াশুনা পাঠ্যবইয়ের মত বোরিং না। এখানে অসংখ্য মানুষ নানান বিষয়ে মতামত দিচ্ছেন, কোন একটি টপিকসে ডিটেইলস আর্টিকেল লিখছেন। আলাপচারী প্রায়ই নানান রকম সেশন আয়োজন করা হয়ে থাকে। তখন বিখ্যাত সব ব্যক্তিদের যারা আলাপচারী ব্যবহার করে থাকেন তাদেরকে প্রশ্ন করার সুযোগ থাকে।

আলাপচারী-র ফেসবুক পেইজটি লাইক দিয়ে রাখতে পারেন। ভালো টপিকস কিংবা সেশনের ব্যাপারে পেইজে নিয়মিত আপডেট করা হয়ে থাকে ।

আলাপচারী তে আপভোট ডাউনভোট ফিচার রয়েছে। এ দুটি ফিচার দিয়ে আপনার মন্তব্য বা লেখা অন্যদের পছন্দ বা অপছন্দ হয়েছে কিনা সেটি বুঝা যায়। উত্তর পছন্দ হলে সেটিকে আপনি আপভোট করা হয় নইলে ডাউনভোট। এটি আলাপচারী-র আনসারগুলো ফিল্টার করার ক্ষেত্রে খুবই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। যেসব প্রশ্নে আপভোট বেশী সেগুলো আপনার ফিডে বেশী দেখানো হবে।

আলাপচারী-তে এছারাও রয়েছে কমেন্ট সেকশন। কারো উত্তরের নিচে আপনি ফেসবুকের মত কমেন্ট করতে পারবেন। কোন একটি উত্তর বা টপিক যদি আপনার অন্য কোন সামাজিক সাইটে শেয়ার করতে ইচ্ছে হয় সেটি আপনি সামাজিক সাইটগুলোতে শেয়ার করতে পারেন।

আপনি সহজেই জানতে পারবেন, আপনার মন্তব্য বা উত্তরগুলো কজন মানুষ ভিউ করেছে, এটি খুবই লোভনীয় ফিচার। আপনার যত ভিউয়ার বাড়বে আলাপচারী ব্যবহারে ততই আপনার আগ্রহ বাড়তে থাকবে, ইচ্ছে করবে আরো ভালো করে উত্তর দেই, আরো সমৃদ্ধ প্রশ্ন করি। আলাপচারী অত্যন্ত বুদ্ধিভিত্তিক একটি জায়গা। নিয়মিত আলাপচারী ব্যবহার আপনার চিন্তার জায়গাকে প্রসারিত করবে, আপনার ভাবনার জগত হয়ে উঠবে বিস্তারিত ও সুন্দর।

হয়ে উঠুন সেরা লেখক

আপনি আলাপচারী ব্যবহার করছেন, প্রশ্ন-উত্তর খেলা চলছে, ব্লগিং চলছে, ইন্টারেস্টিং সেশনগুলোতে প্রশ্ন করেছে, পছন অপছন্দ কমেন্টে জানাচ্ছেন। এতেই কি সব? নিশ্চয়ই না। আলাপচারী তে চাইলে আপনি নিজেকে আলাদা করে তুলতে পারেন। হতে পারেন বছরের সেরা লেখক। কোন একটা বিষয়ের শ্রেষ্ট ভিউড রাইটারসহ আরো অনেক কিছু। এরকম কিছু হতে গেলে আপনাকে রিসোর্চ নিয়ে লিখতে বসতে হবে, ডেফিনিটিভ আনসার দিতে হবে, লেখার সময় সবদিক গুছিয়ে উত্তর দিতে হবে। কোন একটা টপিকসে আপনার যে দক্ষতা সেটি আপনার উত্তর লেখার ধরনে, বর্ণনায় ফুটে উঠতে হবে।

যেহেতু নানা রকমের ও মননের মানুষ আলাপচারী ব্যবহার করে থাকেন তাই কোনভাবেই কারো চিন্তা বা মতের অসম্মান করা যাবেনা। কাউকে অশ্রদ্ধা বা ব্যক্তিগত আক্রমণ করা যাবেনা। ভিন্ন মতের মানুষ ও মতকে শ্রদ্ধা করতে হবে। কোন কন্টেন্টে অশোভন বা অশালীন মন্তব্য করা যাবেনা। পার্সোনাল হ্যারাজমেন্ট, হেইট স্পিচ, জেন্ডার ডেসক্রিমিনেশন এসব পুরোপুরি নিষিদ্ধ। কাউকে ইনসাল্ট করা করে কিংবা কেউ অপমানিত হন এমন মন্তব্য করা যাবেনা। আলাপচারী খুবই গুরুত্বের সাথে এ পলিসিটি নিয়ন্ত্রণ করে থাকে। তাই নিউবিদের এই বিষয়ে সতর্ক থাকতে হবে।

বাংলাদেশী পাঠক ও আলাপচারী

বাংলাদেশে ফেসবুকের যে জনপ্রিয়তা সে জনপ্রিয়তার মোড় ঘুরিয়ে যদি আলাপচারী-তে নেওয়া যায় তাহলে খুবই প্রোডাক্টিভ কিছু ব্যাপার ঘটবে। আমাদের তরুণদের এ বিষয়ে গ্রুমিং করা যেতে পারে। যত বেশী আলাপচারী টাইপ সাইটের পাঠক তৈরি হবে তত বুদ্ধিভিত্তিক ও চিন্তাশীল ভাবনার প্রসার ঘটবে, ভালো পাঠক তৈরি হবে, আমাদের মাঝে বিজ্ঞানভিত্তিক যৌক্তিক চিন্তাভাবনা করার তাগিদ তৈরী হবে।

সো হ্যাপি আলাপচারী রিডিং—কুশ্চেনিং-আনসারিং